দ্বিতীয় অধ্যায়: ব্রিটিশ শাসন

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রস্তুতি ২০২২

বিষয়: বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

অধ্যায় দ্বিতীয়: ব্রিটিশ শাসন

কাঠামোবদ্ধ প্রশ্ন

(১) ব্রিটিশ শাসনের তিনটি ভালো দিক ও তিনটি খারাপ দিক লেখ।

উত্তর: ব্রিটিশ শাসনের তিনটি ভালো দিক হলো:

(ক) নতুন শাসক হিসেবে ইংরেজরা নব উদ্যোমে বাংলার শাসন কার্য সম্পাদন করে।

(খ) নতুন নতুন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও ছাপাখানা প্রতিষ্ঠার ফলে শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতি হয়।

(গ) শিক্ষা ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে উনিশ শতকে বাংলায় নবজাগরণ ঘটে।

ব্রিটিশ শাসনের তিনটি খারাপ দিক হলো:

(ক) এদেশের মানুষের মধ্যে ধর্ম, বর্ণ, জাতি ও অঞ্চলভেদে বিভেদ সৃষ্টি হয়।

(খ) অনেক কারিগর বেকার ও অনেক কৃষক বেকার হয়ে যায় এবং বাংলায় দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়।

(গ) বাংলার সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ গরিব হয়ে যায়।

(২) সিরাজ-উদ-দৌলা কত বছর বয়সে নবাব হন? তাঁর বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র করা হয়েছিল কেন? নবাবের পরাজয়ের চারটি কারণ লেখ।

উত্তর: সিরাজ-উদ-দৌলা ২২ বছর বয়সে নবাব হন।

ব্যক্তিগত স্বার্থ পরিহার্য করা এবং সম্পদ দখলের প্রচেষ্টার কারণে তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল।

নবাবের পরাজয়ের চারটি কারণ হলো:

(ক) ইংরেজদের ক্রমবর্ধমান শক্তি।

(খ) খালা ঘসেটি বেগম, সেনাপতি মীরজাফরের মতো ঘনিষ্ঠজনের ষড়যন্ত্র।

(গ) রায় দুর্লভ ও জগৎ শেঠের মতো  প্রভাবশালী বণিক গোষ্ঠীর ষড়যন্ত্র।

(ঘ) সেনাপতি মীরজাফরের বিশ্বাসঘাতকতা।

(৩) সিপাহি বিদ্রোহ কী? সিপাহি বিদ্রোহ করা নেতৃত্বে হয়েছিল? সিপাহি বিদ্রোহের চারটি কারণ লেখ।

উত্তর: সিপাহি বিদ্রোহ : পলাশী যুদ্ধের ১০০ বছর পর ১৮৫৭ সালে পশ্চিম বাংলার ব্যারাকপুরে  ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে সিপাহীদের যে বিদ্রোহ সারা ভারতবর্ষে ছড়িয়ে পড়ে তা-ই ইতিহাসে সিপাহী বিদ্রোহ বা স্বাধীনতার প্রথম সশস্ত্র সংগ্রাম হিসাবে খ্যাত।

সিপাহি বিদ্রোহ মঙ্গল পান্ডের নেতৃত্বে হয়েছিল।

সিপাহি বিদ্রোহের চারটি কারণ হলো:

(ক)  সেনাবাহিনীতে সিপাহী পদে ভারতীয়দের সংখ্যাধিক্য ছিল।

(খ) ভারতের বিভিন্ন এলাকার সৈন্যদের মধ্যে সামাজিক বিশৃংখলা তৈরি হয়েছিল।

(গ) ১৮৫৬ সালের পর ভারতের বাইরেও সৈন্যদের কাজ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল।

(ঘ) কামান ও বন্দুকের কার্তুজ পিচ্ছিল করার জন্য গরুর এবং শুকরের চর্বি ব্যবহারের গুজব নিয়ে ধর্র্মীয় অশান্তি তৈরি করা হয়েছিল।

(৪) পলাশির যুদ্ধ কী? নবাব এ যুদ্ধে পরাজিত হয়েছিলেন কেন? পলাশির যুদ্ধের চারটি ফলাফল লেখ।

উত্তর: ১৭৫৭ সালে পলাশির প্রান্তরে নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা ও ইংরেজদের মাঝে যে যুদ্ধ হয় ইতিহাসে তাই পলাশির যুদ্ধ হিসেবে পরিচিত।

সৈন্যবাহিনীর প্রধান মীর জাফরের বিশ্বাসঘাতকতার কারণে নবাব পরাজিত হন।

পলাশির যুদ্ধের চারটি ফলাফল হলো:

(ক) নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা ইংরেজদের কাছে পরাজিত হন।

(খ) বাংলা তথা ভারতবর্ষ স্বাধীনতা হারায়।

(গ) ভারতবর্ষে ইংরেজ শাসনের ভিত্তি স্থাপিত হয়।

(ঘ) বাংলার সমাজ সংস্কৃতিতে ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হয়।

(৫) ‍তিতুমীর কে ছিলেন? তিনি বাঁশের কেল্লা নির্মাণ করেন কেন? ব্রিটিশ বিরোধী চারটি আন্দোলনের নাম লেখ।

উত্তর: তিতুমীর ছিলেন ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা সংগ্রামী ও বিদ্রোহী নেতা।

ইংরেজদের প্রতিহত করার জন্য তিনি বারাসাতের কাছে নারকেলবাড়িয়া গ্রামে বাঁশের কেল্লা নির্মাণ করেন।

ব্রিটিশ বিরোধী চারটি আন্দোলনের নাম হলো:

(ক) সিপাহি বিদ্রোহ।

(খ) স্বরাজ আন্দোলন।

(গ) অসহযোগ আন্দোলন।

(ঘ) ফরায়েজী আন্দোলন।

565 Views
Leave A Reply

Your email address will not be published.